তজুমদ্দিনে কোষ্টগার্ড মাংসসহ হরিণ শিকারীদের আটকের পর ছেড়ে দিলো

0
103

তজুমদ্দিন প্রতিনিধি ॥ ভোলার তজুমদ্দিনে কোষ্টগার্ড সদস্যরা হরিণের মাংসসহ ৪শিকারীকে আটকের পর ছেড়ে দিয়ে ২৫কেজি মাংস উদ্ধার দেখিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় স্লুইজঘাট এলাকা থেকে একটি নৌকাসহ ৪শিকারীকে হরিণের মাংসসহ আটকের পর সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর না করে মাঝ নদীতে নিয়ে যায় কোস্টগার্ড সদস্যরা। চলে দিনভর নাটক আর নাটক। উৎসুক জনতা নদীর পাড়ে অপেক্ষায় বসে থাকেন আর কোস্টগার্ড সদস্যরা মাঝনদীতে তাদেরকে নিয়ে নাটক করেন দীর্য সময়। অবশেষে দিনভর নাটকের পর ৪জনকে ছেড়ে দিয়ে মাংস নিয়ে বিকেলে গোপনে তজুমদ্দিনের অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত লালমোহনের উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কার্যালয়ে হাজির হন। পরে তিনি ঐ মাংস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তজুমদ্দিনেই ফেরত পাঠান।

তজুমদ্দিনের শশীগঞ্জ বিটের বন কর্মকর্তা আঃ রাজ্জাক জানান, বন বিভাগ ও কোষ্টগার্ডের কাছে হরিণের মাংসর বিষয়ে গোপন সংবাদ আসে। বেলা সাড়ে ১০টায় শশীগঞ্জ স্লুইজঘাট এলাকায় চরকলাতলীর বাদশা মাঝির নৌকায় মাংসসহ ৪জনকে পাওয়া যায়। তজুমদ্দিনের কোষ্টগার্ড বন বিভাগকে পাশ কাটিয়ে ৪জনসহ নৌকাটি মাঝ নদীতে নিয়ে যায়। পরে বিকাল ৪ টায় শুধুমাত্র হরিণের মাংস গ্রহণ করতে বললে অপারগতা প্রকাশ করি।

অভিযোগে জানাযায়,মনজু,মনির ও নাজমুলসহ চারজন ওই সময় নৌকায় ছিলো। এছাড়া কলাতলীর কালাম কসাই,আব্দুল আজিজ,শরীফ বাতান, বাবর মাঝি, মাকসুদ, কালু ও রিদু মিলে হরিণ শিকার করেছেন বলে জানাযায়। প্রায় ৪০কেজি হরিণের মাংস ছিলো ওই নৌকাতে।

তজুমদ্দিন কোষ্টগার্ড কন্টিনজেন্ট কমান্ডার জানান,তজুমদ্দিনের সোনারচর এলাকায় নৌকাসহ পরিত্যক্ত ২৫কেজি হরিণের মাংস পাওয়া গেছে। তা উদ্ধার করে নির্বাহি কর্মকর্তার কাছে হাজির করা হয়। শশীগঞ্জ স্লুইজঘাট এলাকা থেকে আটক হওয়া নৌকা, শিকারী ও মাংস সোনারচরে পরিত্যক্ত কেন ? এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্যস্ত আছেন বলে ফোন কেটে দিয়ে সরকারী নম্বরটি বন্ধ করে রাখেন।

তজুমদ্দিনের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত লালমোহন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান রুমি বলেন, কোষ্টগার্ড জানিয়েছে নৌকা থেকে লাফিয়ে লোক পালিয়ে গেছে। প্রায় ১০/১৫ কেজি মাংস হবে তা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য তজুমদ্দিনেই ফেরত পাঠানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY